পহেলা বৈশাখ সম্পর্কে ১০টি বাক্য

পহেলা বৈশাখ সম্পর্কে ১০টি বাক্য – বাংলা নববর্ষ ১৪৩০

সর্বপ্রথম ১৫৮৪ সালে মোগল সম্রাট আকবরের মাধ্যমে বাংলা সনের প্রবর্তন হয়। এরপর থেকেই প্রতিবছর বাংলা নববর্ষ কে অনেক জালজামকপূর্ণভাবে পালন করা হচ্ছে। আজকে ১৪ই এপ্রিল বাংলাদেশ বাংলা নববর্ষ বা বর্ষবরণ উৎসব চলতেছে। আগামীকাল অর্থাৎ ১৫ এপ্রিল আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতেও পহেলা বৈশাখ উদযাপন করা হবে। নতুন বছরের সকল দুঃখ-বেদনা বলে নতুন বছরকে সাদরে গ্রহণ করার জন্য বাঙালি সর্বদা প্রস্তুত।

পহেলা বৈশাখ বা বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে ইন্টারনেটে এই তিনটির ইতিহাস সম্পর্কে জানতে চাই। বাংলা নববর্ষ কে কত সালে প্রবর্তন করেছিল তা অনেকেই জানতে আগ্রহ প্রকাশ করে। আবার অনেকেই ইন্টারনেটে পহেলা বৈশাখ সম্পর্কে  ১০টি বাক্য খুঁজে থাকে। এজন্য আজকের এই পোস্টে আমি আপনাদের সাথে পহেলা বৈশাখ বাংলা নববর্ষ নিয়ে দশটি গুরুত্বপূর্ণ বাক্য শেয়ার করব।

বাংলা নববর্ষ ১৪৩০

আপনি কি জানেন আজকে বাংলা নববর্ষের কত তারিখ? হ্যাঁ আজকে পহেলা বৈশাখ, অর্থাৎ ইতিমধ্যেই আমরা পুরাতন একটি বাংলা বছরকে বিদায় জানিয়ে নতুন একটি বছরকে সাদরে আমন্ত্রণ জানাতে চলেছি। আজকে বাংলা ১৪৩০ সাল, বৈশাখ মাসের ১ তারিখ। ইতিমধ্যে আমরা জেনেছি যে ১৪ই এপ্রিল বাংলাদেশে পহেলা বৈশাখ উদযাপন করা হয়। এছাড়াও আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতেও ১৫ এপ্রিল পহেলা বৈশাখ পালিত হয়ে থাকে।

পহেলা বৈশাখ সম্পর্কে ১০টি বাক্য

ইতিমধ্যেই আমরা বাংলা ১৪২৯ সালকে বিদায় জানিয়ে ১৪৩০ সাল কে স্বাগত জানিয়েছি। পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে যারা বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে থাকে তারা অনেকেই ইন্টারনেটে বাংলা নববর্ষ বা পহেলা বৈশাখ সম্পর্কে দশটি বাক্য খুঁজে থাকে। নিচের অংশে আপনাদের জন্য পহেলা বৈশাখ সম্পর্কে কিছু তথ্য শেয়ার করা হয়েছে। আশা করি আপনার জন্য এই তথ্যগুলো বাংলা নববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে অনেক উপকারে আসবে।

  1. ১৫৮৪ সনে মোগল সম্রাট আকবর বাংলা সনের প্রবর্তন করেন, এবং তার শাসনামলেই প্রথম পহেলা বৈশাখ উদযাপিত হয়।
  2. বাংলা নববর্ষের ১ম দিনকে পহেলা বৈশাখ বলা হয়ে থাকে।
  3. বাংলাদেশের ১৪ ই এপ্রিল এবং ভারতে ১৫ই এপ্রিল পহেলা বৈশাখ পালন করা হয়ে থাকে।
  4. বাংলা বর্ষপঞ্জিকা অনুযায়ী পহেলা বৈশাখ হচ্ছে বাংলা বছরের ১ম মাসের ১ম দিন।
  5. পহেলা বৈশাখ উদযাপন উপলক্ষে বাংলা একাডেমি, বাঙালি বাংলাদেশ, শিল্পকলা একাডেমি, বাংলাদেশ শিশু একাডেমি, ছায়ানট, বুলবুল ললিতকলা একাডেমী, নজরুল ইন্সটিটিউট মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর সহ আরও অনেক প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন ধরনের সাংস্কৃতিক কর্মসূচি পালন করে।
  6. পহেলা বৈশাখ একটি অসাম্প্রদায়িক উৎসব, এই উৎসবে মুসলমান-হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান সকল ধর্মের মানুষ যুক্ত হয়ে থাকে।
  7. নববর্ষের প্রথম দিন থেকে সারা বৈশাখ মাস বৈশাখী মেলা অনুষ্ঠিত হয়। মেলায় থাকে বিভিন্ন ধরনের বাঙালির ঐতিহ্য। যেমনঃ কৃষিজাত শিল্প, জন্য কুটির শিল্প, পণ্য সহ পুতুল খেলা, সার্কাস, গম্ভীরা, জারি সারি গান।
  8. হালখাতা (নতুন একটা হিসাব বই) হল বাংলা সালের প্রথম দিনে দোকানের হিসাব নিকাশ আনুষ্ঠানিকভাবে হালনাগাদ করার প্রক্রিয়া বা কৌশল।
  9. এই দিনে মঙ্গল শোভাযাত্রার আয়োজন করা হয়, মঙ্গল শোভাযাত্রা কি ইউনেস্কো “মানবতার অমূল্য সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য” হিসেবে ঘোষণা করে।
  10. বাংলা বছরের ১ম দিনটি পান্তা ইলিশের মধ্য দিয়ে শুরু হয়। তারপর বিভিন্ন ধরনের পশু পাখি ,হাতি, ঘোড়ার মুখোশ নিয়ে মঙ্গল শোভাযাত্রা শুরু হয়।

শেষ কথা

বাংলাদেশ ভারত ছাড়াও বাংলা ভাষাভাষী লোকজন যে সকল দেশে বসবাস করে থাকে তারাও বাংলা নববর্ষ বা পহেলা বৈশাখ উজ্জাপন করে থাকে। আপনিও যদি পহেলা বৈশাখ উদযাপন করার একজন আগ্রহে নাগরিক হয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনাকে পহেলা বৈশাখ সম্পর্কে কিছু তথ্য জেনে নেওয়া জরুরী। আজকের এই পোস্টে আমি আপনাদের সাথে পহেলা বৈশাখ সম্পর্কে ১০টি বাক্য শেয়ার করার চেষ্টা করেছি।

আরও দেখুনঃ

শুভ নববর্ষ ১৪৩০, বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা বাণী ও ফেসবুক স্ট্যাটাস

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *